Menu Close
3 2Bways 2Bto 2Bearning 2Bfrom 2Bgoogle

বর্তমান সময়ে কাউকে যদি বলা হয় সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং বহুল ব‌্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিন কোনটি ? যে কেউ নিঃসন্দেহে বলবে গুগল সার্চ। তবে সার্চ ইঞ্জিন দিয়ে জনপ্রিয় হলেও গুগল এর কিন্তু আরও অনেক সার্ভিস রয়েছে, যেমনঃ জিমেইল, গুগল ড্রাইভ, গুগল ফটোস ইত‌্যাদি। এই ধরনের অনেক সার্ভিস দিয়ে থাকে গুগল। তবে গুগলেরও ইনকামের একটা উৎস হল বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ‌্যমে। বিজ্ঞাপন দাতারা গুগল অ‌্যাড ওয়ার্ডের মাধ‌্যমে গুগলেকে বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। এবং সেই বিজ্ঞাপন গুগল তাদের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করার প্ল‌্যাটফর্ম গুলোতে  প্রদর্শন করে যা ইনকাম করে।

তার কিছু অংশ তাদের বিজ্ঞাপন গ্রহীতাদের দিয়ে থাকে গুগল অ‌্যাডসেন্সের মাধ‌্যমে। গুগল অ‌্যাডসেন্সের মাধ‌্যমে ইনকাম করতে হলে অ‌্যাডমব, ব্লগার, ইউটিউব এই ৩টি পদ্ধতির যে কোন একটি নিয়ে আপনাকে কাজ করতে হবে। আর সেগুলোর ইনকাম গুগল অ‌্যাডসেন্সের মাধ‌্যমে রেমিট‌্যান্স হিসেবে আপনার ব‌্যাংক একাউন্টে আসবে। আশা করি এতটুকু বুঝতে পেরেছেন। তো এখন অ‌্যাডমব, ব্লগার, ইউটিউব এই ৩টি পদ্ধতির বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

 

১) অ‌্যাডমব 

অ‌্যাডমব হল গুগল অ‌্যাডওয়ার্ডের মাধ‌্যমে বিজ্ঞাপন দাতারা যে বিজ্ঞাপন গুলো গুগলকে দিয়ে থাকে, তা অ‌্যান্ড্রয়েড এবং আই ও এস অপারেটিং সিষ্টেমের অ‌্যাপসগুলোতে গুগলের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করানোর একটি পদ্ধতি। যা গুগল ২০০৬ সালের দিকে চালু করে। এই পদ্ধতির মাধ‌্যমে একজন অ‌্যাপস ডেভেলপার তাঁর অ‌্যাপে গুগলের বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের মাধ‌্যমে ভাল একটা ইনকাম করে থাকেন। তবে তাঁর জন‌্য অবশ‌্যই গুগলের অ‌্যাপস ডাউনলোড সার্ভিস অর্থ‌্যাৎ প্লে-স্টোরে ২৫ ডলার খরচ করে অবশ‌্যই একটি একাউন্ট করে নিতে হবে।

যাতে আপনার অ‌্যাপের ব‌্যবহারকারীরা খুব সহজে অ‌্যাপটি প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারে। বর্তমানে আপনি যদি ও অ‌্যাপ ডেভেলপমেন্ট না জেনে থাকেন তাঁর পরেও এই পদ্ধতির মাধ‌্যমে আপনিও ভাল একটা ইনকাম করতে পারবেন। তাঁর জন‌্য অবশ‌্যই আপনাকে অনেক টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। যেমনঃ প্লে-স্টোর একাউন্টের জন‌্য আপনার ২৫ ডলার খরচ করতে হবে। এবং একজন অ‌্যাপ ডেভেলপার দিয়ে অ‌্যাপ বানিয়ে নেওয়ার জন‌্য আপনাকে আরও কিছু টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। পাশাপাশি অ‌্যাপের মার্কেটিংয়ের জন‌্য আরও কিছু টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।

তাহলেই একজন প্রফেশনাল অ‌্যাপ ডেভেলপার না হয়ে ও আপনি কিছু টাকা বিনিয়োগ করে এই পদ্ধতিতে গুগল থেকে ভাল একটা ইনকাম করতে পারেন। তবে আপনি যদি নিজেই অ‌্যাপ ডেভেলপমেন্ট এবং মার্কেটিং করতে পারেন সেক্ষেত্রে আপনার বিনিয়োগ মাত্র ২৫ ডলার। যা শুধু প্লে-কনসোল অর্থ‌্যাৎ প্লে-স্টোর একাউন্ট খোলার জন‌্য প্রয়োজন পরবে।

 

২) ব্লগার 

অ‌্যাডমব যেমন অ‌্যান্ড্রয়েড এবং আই ও এস অপারেটিং সিষ্টেমের অ‌্যাপসগুলোতে গুগলের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করানোর একটি পদ্ধতি। তেমনি ব্লগার হচ্ছে ওয়েবসাইটে গুগলের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করার একটি পদ্ধতি। ১৯৯৯ সালের দিকে গুগল ব্লগার চালু করে।  যদিও আপনি ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে তাতে কিছু লেখা প্রকাশ করে অ‌্যাডসেন্সের মাধ‌্যমে আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করার জন‌্য আবেদন করতে পারবেন। তবে আপনার যদি ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনার মত টাকা না থাকে তাহলে আপনি আপনার ওয়েবসাইট ব্লগার দিয়ে শুরু করতে পারেন।

ব্লগার হল গুগলের একটি উন্মুক্ত প্ল‌্যাটফর্ম যেখানে আপনি একাউন্ট করলে ফ্রিতে একটি সাবডোমেইন পাবেন ব্লগসপট ডট কম নামে এবং সাথে পাচ্ছেন ফ্রি হোস্টিং। তা দিয়ে প্রথম অবস্থায় আপনি আপনার কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন। এবং আপনার লেখার কোয়ালিটি ভাল হলে ব্লগার থেকে অ‌্যাডসেন্সের জন‌্য আবেদন করতে পারবেন। অ‌্যাডসেন্স অনুমোদন পেলে আপনি ব্লগারের মাধ‌্যমে ভাল একটা ইনকাম করতে পারবেন। অনেকে আছেন যারা হোস্টিং কিনা ছাড়াই শুধু ডোমেইন কিনে ব্লগিং করতে চান। তাদের জন‌্য ভাল একটি পদ্ধতি হল ব্লগার। এখানে আপনি টপ লেভেলের যে কোন ডোমেইন অ‌্যাড করে নিতে পারেন। যেহেতু ব্লগারে হোস্টিং ফ্রি তাই হোস্টিং নিয়ে কোন চিন্তা করতে হয় না।

 

৩) ইউটিউব

উপরে আমরা জেনেছি যে, অ‌্যাডমব এর মাধ‌্যমে অ‌্যাপে এবং ব্লগার এর মাধ‌্যমে ব্লগিং ওয়েবসাইটে গুগলের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করানোর মাধ‌্যমে ইনকাম করা যায়। তবে ইউটিউব তাদের তুলনায় ভিন্ন একটি প্ল‌্যাটফর্ম যেখানে ভিডিওতে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে ইনকাম করা যায়। তবে সেক্ষেত্রে গুগলের কিছু শর্ত রয়েছে যেগুলো পূরণ করার পর আপনি আপনার ইউটিউবে আপলোড করা ভিডিওতে বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের মাধ‌্যমে ইনকাম করতে পারবেন।

২০০৫ সালের দিকে স‌্যার জাওয়েদ করিম, স্টিভ চেন, চেড হারলি এই ৩ জন মিলে ইউটিউব তৈরি করেন। পরবর্তীতে তাদের তৈরী করা এই প্ল‌্যাটফর্মটি জনপ্রিয় হতে থাকে। ২০০৬ সালের দিকে গুগল ইউটিউবকে কিনে নেয় এবং ইউটিউবের মধ‌্যে অনেক পরিবর্তন আনতে থাকে। ইউটিউবের ইতিহাস নিয়ে না হয় অন‌্য একটি পোষ্টে আলোচনা করব।

তো ইউটিউব থেকে ইনকাম করার জন‌্য যে জিনিসটি আপনার প্রয়োজন হবে সেটি হল ভিডিও। আপনি যদি ভিডিও বানাতে পছন্দ করেন তাহলে ইউটিউবে একটি চ‌্যানেল খুলে সেখানে ভিডিও আপলোড করে, ইউটিউবের শর্তসমূহ পূরণ করে ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখানোর জন‌্য আবেদন করতে পারেন। এবং এইভাবে ভাল একটি ইনকাম করতে পারেন।

উপরে উল্লেখিত পদ্ধতিগুলোর মধ‌্যে যে পদ্ধতিটি আপনার ভাল লাগবে, সে পদ্ধতি নিয়ে কাজ করে ভাল একটা ইনকাম করতে পারেন গুগল থেকে। অনেকে অনলাইনে অযথা সময় নষ্ট করেন। সে সময়ের মধ‌্যে থেকে কিছু সময় ব‌্যয় করে গুগলের মাধ‌্যমে ইনকামের একটা সুযোগ তৈরী করতে পারেন। নতুন পোষ্ট পেতে অবশ‌্যই আমাদের ওয়েবসাইটিকে ফলো করে রাখবেন।

 

নতুন নতুন তথ্য পেতে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন ফেসবুকটুইটার পেইজ-এ। পোষ্টের ভুলসমূহ ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। পোষ্টটি সম্পর্কে আপনার মূল্যবান মতামত জানাতে এবং আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

অন্যান্য পোস্টসমূহঃ

error: Content is protected !!