Menu Close

অধিবর্ষ (Leap Year):


অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ার (ইংরেজিঃ Leap Year) হল এমন একটি বিশেষ বছর, যেখানে সাধারণ বছরের তুলনায় একটি দিন (বা চান্দ্রবছর এর তুলনায় একটি মাস) বেশি যুক্ত করা হয় যাতে তা জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বছর এর সাথে মিলে যায়। সাধারণত অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ার ৪ বছর পর পর আসে। বাংলা অধিবর্ষের ফাল্গুন মাসে ২৯ দিনের পরিবর্তে ৩০ দিন হয় এবং ইংরেজি অধিবর্ষের ফেব্রুয়ারি মাস ২৮ দিনের পরিবর্তে ২৯ দিন হয়।

ইতিহাস এবং বর্ণনাঃ


অনেকেই জানেন যে বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ‌২৯ দিন হলেই তাকে লিপ ইয়ার বলা হয়। কিন্তু ফেব্রুয়ারি মাসে ২৯ দিন হওয়ার জন্য বছরগুলোকে কিছু শর্ত পূরণ করতে হয়। এই শর্ত পূরণের উপর নির্ভর করে কোন বছরটি অধিবর্ষ হবে আর কোনটি হবে না। আমরা বর্ষপঞ্জি তে সাধারণত ৩৬৫ দিনে একবছর হিসেবে করি কিন্তু সূর্যকে পৃথিবীর একবার ঘুরে আসতে ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড সময় লাগে। এখানে ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড সময় বর্ষপঞ্জিতে হিসাব করা যায় না তাই প্রতি ৩৬৫ দিনে একবছর হিসেব করার পরে ওই বছরের এই ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড বাড়তি থাকে এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা থেকেই মুলত লিপ ইয়ার এর ধারনা আসে।

৪৫ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে রোমান শাসক জুলিয়াস সিজার অধিবর্ষের ধারণার প্রবর্তন করেন। পূর্বে রোমানদের বছর ৩৫৫ দিনে হিসেব করা হতো এবং বছরের বিভিন্ন উৎসব পালন করার সুবিধার্থে পরবর্তী বছর একটা ২২ বা ২৩ দিনের মাস যোগ করা হতো। নিয়মটাকে সহজ করার লক্ষ্যে জুলিয়ান সিজার বিভিন্ন মাসে দিন যোগ করে ৩৬৫ দিনে বছর প্রবর্তন করেন এবং প্রতি চার বছর পর পর ফেব্রুয়ারি মাসে ২৮ দিনের পরবর্তিতে ২৯ দিন ধরেন। আর এটাই জুলিয়ান ‌বর্ষপঞ্জি হিসেবে পরিচিত। জুলিয়ান সিজার এর ‌‌বর্ষপঞ্জি দিন গণনাকে অনেক সহজ করে দিলেও সেখানে কিছুটা ভুল ছিলো। জুলিয়ান সিজার বছরের ব্যাপ্তি মনে করেছিলেন ৩৬৫.২৫ সৌর দিন (৩৬৫ দিন ৬ ঘন্টা), আসলে তা হবে ৩৬৫.২৪২২ সৌর দিন (৩৬৫ দিন ৫ ঘন্টা ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড) যা জুলিয়ান বর্ষপঞ্জির তুলনায় ১১ মিনিট ১৩ সেকেন্ড বা ০.০০৭৮ দিন কম যেটা সাথে সাথে কোন প্রভাব না ফেললেও পরে আনেক বড় একটা পার্থক্য তৈরি করে। যেমনঃ এ বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী ১৫৮২ সালের বসন্ত বিষুবন ২১ মার্চের পরিবর্তে ১১ মার্চে পড়ে। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য পরবর্তীতে রোমের ত্রয়োদশ পোপ সেন্ট গ্রেগরী ব‌‌র্ষপঞ্জি সংশোধনের লক্ষ্যে ১৫৮২ সালের হিসাব থেকে ১০ দিন বাদ দিয়ে অধিবর্ষের সমস্যার সমাধান করেন এবং বলেন যে,

যে সকল বছর ৪ দ্বারা বিভাজ্য সে বছরগুলো অধিবর্ষ আর যদি শতবর্ষীয় সাল ৪ বিভাজ্য ও একইসাথে ৪০০ দ্বারা বিভাজ্য না হয় তাবে তা অধিবর্ষ নয়। কারন বছরের দৈর্ঘ্য ৩৬৫.২৪২২ সৌর দিন হলে প্রতি চারশত বছরে ১০০টি নয় বরং প্রয়োজন ৯৭টি অধিবর্ষের।

আর এভাবে প্রতি চারশত বছরে তার থেকে ৩টি লিপ ইয়ার বাদ দিয়ে ‌সেন্ট গ্রেগরী লিপ ইয়ার এর সঠিক ধারণা প্রবর্তন করেন। সংশোধিত এই ব‌‌র্ষপঞ্জিটি  গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জি নামে পরিচিত।

বাংলা সনে অধিবর্ষঃ


সম্রাট আকবর কর্তৃক প্রথম বাংলা বর্ষপঞ্জি প্রবর্তিত হয়েছিল তবে তাতে লিপ ইয়ার ছিল না। পরবর্তিতে বাংলা একাডেমী গ্রেগরীর বর্ষপঞ্জির মত বাংলা বর্ষপঞ্জিতেও লিপ ইয়ার যুক্ত করে। যেহেতু ফেব্রুয়ারি মাস বাংলায় ফাল্গুন-চৈত্র মাসে পড়ে তাই সাধারণত ফাল্গুন মাসে প্রতি চার বছর পর পর একদিন অতিরিক্ত যুক্ত করা হয়।

হিসাবঃ


কোন সাল লিপ ইয়ার কিনা সেটা হিসেব করতে সালটিকে ৪ দ্বারা ভাগ করতে হবে যদি ভাগশেষ শুন্য হয় তাহলে এইটা লিপ ইয়ার।
যেমনঃ লিপ ইয়ার=সাল/৪
এখানে উত্তর যাই হোক না কেন যদি ভাগশেষ শুন্য হয় তাহলে এই সালটা বা বছরটা লিপ ইয়ার আর যদি না হয় তাহলে লিপ ইয়ার না।
আর যদি কোন ‌শতবর্ষীয় সাল হয় (যেমনঃ ১৯০০, ২০০০, ২১০০ ইত্যাদি) তাহলে সেটা অবশ্যই ৪ দ্বারা এবং ৪০০ দ্বারা ভাগ করতে হবে যদি ৪ দ্বারা ভাগ করার পরে নিঃশেষ এ বিভাজ্য হয়ে যায় তাহলে আবার ৪০০ দ্বারা ভাগ করতে হবে এবার ও যদি ভাগশেষ শুন্য হয় তাহলে বছরটি লিপ ইয়ার কিন্তু ৪ দ্বারা ভাগ করে নিঃশেষ এ বিভাজ্য হয় আর পরে যদি ৪০০ দ্বার ভাগ করার পরে বিভাজ্য না হয় তাহলে বছরটি লিপ ইয়ার নয়।

তথ্যসূত্রঃ


১। উইকিপিডিয়া

২। একুশে টিভি

অন্যান্য পোস্টসমূহঃ

error: Content is protected !!