Menu Close

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট এর মধ্যে প্রথম আমাদের ঠিক করতে হবে যে আমরা কোন বিষয়টি শিখব ডিজাইন নাকি ডেভেলপমেন্ট । কিন্তু এক্ষেত্রে আমাদের মধ্যে অনেকেই আমরা নিজেরা ঠিক করতে পারিনা যে কোনটি আমাদের পক্ষে শেখা ভালো হবে বা কোনটি শেখা উচিত । আর আপনি কোনটি শিখবেন সেটা নির্বাচন করতে হবে আপনাকে ।

 এখন আমি যদি আপনাকে বলি যে আপনি ওয়েব ডেভলপার হন তাহলে তো আর হবে না । আপনি কি হবেন বাকি হতে আপনি ইচ্ছুক সেটা আপনার ইচ্ছা এবং অভিজ্ঞতার উপর নির্ভর করে । তবে এ দুটোর মধ্যে কোনটি তাহলে ভালো ? ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট এর দুটি ভাগ কিন্তু আপনি কোনটি শিখতে চান সেটা আপনাকে নির্বাচন করতে হবে ।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট
ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট

এক্ষেত্রে আপনি যদি চান, যেটার অনলাইন মার্কেটপ্লেস কাজের চাহিদা সবচেয়ে বেশি আপনি সেটাই করবেন । তাহলে আপনি গুগলে গিয়ে সার্চ করে দেখতে পারেন যে বর্তমানে কোন কাজটি এর অনলাইন মার্কেটপ্লেসে সবচেয়ে চাহিদা বেশি রয়েছে । এক্ষেত্রে আপনাকে নির্বাচন করতে হবে যে  কী শিখবেন অন্য কেউ যদি বলে আপনি এটা শিখুন আপনি ওটা শিখুন সেটা কিন্তু ঠিক হবে না , যে উনি আমাকে ওয়েব ডিজাইন শিখতে বলেছেন বা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে বলেছেন এটা সম্পূর্ণভাবে আপনি কি ডিসিশন নিতে হবে যে আপনি কোনটা শিখতে ইচ্ছুক এবং আগ্রহী । 

তবে যদি আপনার হাতে তেমন বেশি সময় না থাকে যেমন দুই থেকে তিন বছর সময় যদি আপনি না দিতে পারেন, আপনি চান যদি স্বল্প সময়ের মধ্যে শিখে স্বল্প সময়ের মধ্যে 10, 50, 100 ডলার আর্ন করতে তাহলে আমি বলব আপনি ওয়েব ডিজাইন শিখতে পারেন । কারণ 6 মাসের মধ্যে ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে আপনি মোটামুটি একটা ধারণা লাভ করতে পারবেন । তারপর ওয়েব ডিজাইনের ছোট ছোট কাজ করে আপনি আর্ন করতে পারবেন । 

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শেখার ক্ষেত্রে সময়টা অনেকটা বেশি লাগে দেড় থেকে দুই বছর সময় লাগে সম্পূর্ণ ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে এবং পুরোপুরি দক্ষতা অর্জন করতে আরো কিছুটা সময় লাগে । 

তবে আমি আপনাকে একটি ব্যক্তিগত পরামর্শ দিতে পারি : 

সেটা হলো আপনি সর্বপ্রথম ওয়েব ডিজাইন শিখবেন । এটা শিখতে আপনার পাঁচ-ছয় মাস সময় লাগবে । আজ ছয় মাস পর আপনি ওয়েব ডিজাইন মোটামুটিভাবে শিখে ছোট ছোট কাজ করে আর্ন করতে পারবেন ।  তার সাথে সাথে আপনি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে শুরু করবেন । কয়েক বছরের মধ্যে আপনি ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট শিখে সুন্দর একটি ক্যারিয়ার গঠন করতে পারবেন নিজেই ।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টঃ

ওয়েব ডিজাইনঃ  ওয়েব ডিজাইন হচ্ছে একটি ওয়েবসাইট এর বাহিরের রূপটা কেমন হবে তা ডিজাইন করা। যেমন একটি বাড়ি তৈরি করতে হলে প্রথমে বাড়ির ভীম স্থাপন করা হয়। তারপর ঠিক করা হয় বাড়িটি দেখতে কেমন হবে এবং সেই অনুযায়ী বাড়ির বাইরের দেওয়াল জানালা-দরজা ইত্যাদি তৈরি করা হয় । সেরকম ভাবি ওয়েব ডিজাইনাররা ওয়েবসাইট কি রকম দেখতে হবে কোথায় কোন মেনু থাকবে, সাইডবার হবে কিনা, ইমেজ গুলো কিভাবে প্রদর্শন করবে তার সব ওয়েব ডিজাইনার এর মাধ্যমে করা হয়ে থাকে।

ওয়েব ডেভেলপমেন্টঃ ওয়েব ডিজাইনের মাধ্যমে ওয়েবসাইটের বাহ্যিক রূপ টা কেমন হবে তা সবকিছু ঠিক করে দেওয়া হয় মেনুবার কোথায় থাকে সেটা ঠিক করে দেওয়া হয় কিন্তু এর মাধ্যমে । কিন্তু কোথায় ক্লিক করলে কোথায় যেতে হবে বা কোন মেনুতে ক্লিক করলে কি তথ্য প্রদর্শন করবে সেটা ওয়েব ডিজাইন এর মাধ্যমে করা যায় না । এক কথায় বলতে গেলে

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট হচ্ছে ওয়েব ডিজাইন থেকে তৈরিকৃত টেমপ্লেট টি থেকে মার্কআপ ল্যাংগুয়েজ এবং প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ এর মাঝে সম্পর্ক গঠন করে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা । 

কেন শিখবেন ওয়েব ডিজাইন বা ডেভেলপমেন্টঃ

ওয়েব ডিজাইন বা ডেভেলপমেন্ট শিখে আপনি কি করবেন ? 

অবশ্যই আপনি বলবেন টাকা ইনকামের জন্য । অবশ্যই আপনি টাকা ইনকাম করবেন কিন্তু আপনাকে ওয়েব ডিজাইন বা ডেভেলপমেন্ট সম্পর্কে দক্ষ এবং প্রফেশনাল হতে হবে । যদি আপনি বলেন কাজ শিখি আপনি টাকা ইনকাম করতে শুরু করবেন তাহলে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এবং ডিজাইন আপনার কাছ থেকে দূরে পালিয়ে যাবে।  

অবশ্যই আপনি ওয়েব ডেভলপমেন্ট বা ডিজাইন শিখে টাকা ইনকাম করবেন কিন্তু প্রথমে আপনাকে ভালোভাবে জানতে হবে এবং শিখতে হবে কিভাবে কাজ করতে হবে এসব সকল তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা অর্জন করতে হবে । তারপর কাজের চিন্তা করবেন । 

ওয়েবসাইটের ধরনঃ

ওয়েবসাইট প্রধানত দুই ধরনের হয়ে থাকে ,

  • স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট
  • ডাইনামিক ওয়েবসাইট

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটঃ যে সমস্ত ওয়েবসাইট প্রত্যেকটা ইউজার বা ভিজিটরকে একই ধরনের তথ্য প্রদর্শন করে তাকে মূলত স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে । যেমন, আমি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করি ওই ওয়েবসাইট আমাকে যে তথ্য প্রদর্শন করবে ঠিক তেমনভাবেই আপনি যদি এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করেন তাহলে আপনাকে এই একই ধরনের তথ্য প্রদর্শন করবে । এখানে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ তেমন ব্যবহার করা হয় না এখানে ডিজাইনের ব্যাপারটি মুখ্য । 

ডাইনামিক ওয়েবসাইটঃ যে সমস্ত ওয়েবসাইটে প্রত্যেকটা ইউজার বা ভিজিটরকে আলাদা আলাদা তথ্য প্রকাশ করে সে সমস্ত ওয়েবসাইট গুলোকে ডায়নামিক ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে । যেমন আমি যদি আমার অ্যাকাউন্ট লগ ইন করি তাহলে শুধু আমার তথ্যই প্রদর্শন করবে আর যদি আপনি আপনার অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করেন তাহলে শুধু আপনার তথ্যগুলো প্রদর্শন করবে । এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে “ফেসবুক”। ফেসবুক ডাইনামিক ওয়েবসাইটের সবচেয়ে বড় উদাহরণ । এই সকল ওয়েবসাইটে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যবহার করা হয়ে থাকে যেমন PHP ।

সহজ ভাবে বলতে গেলে, ওয়েব ডিজাইন এর মাধ্যমে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়ে থাকে এবং ওয়েব ডেভলপমেন্ট এর মাধ্যমে ডাইনামিক ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়।

ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে যা যা শিখতে হবেঃ

পৃথিবীতে বর্তমানে কয়েক মিলিয়ন ওয়েবসাইট আছে । বর্তমানে ইন্টারনেট আস্তে আস্তে আগের চেয়ে আরো বেশি জনপ্রিয় হয়ে পড়ছে । যেটা আমরা সবাই জানি । আর যদি ওয়েবসাইট না থাকতো তাহলে আপনি যে আমাদের এই লেখাটি পড়বেন সেটা পড়তে পারতেন না এবং আমরাও এ ধরনের কোনো লেখা আপনাকে জানাতে পারতাম না । তার জন্য ওয়েবসাইটের আবিষ্কার হয় । ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে আপনাকে কয়েকটি বিষয় সম্পর্কে শিখতে হবে সেগুলো হলো ,  

এই তিনটি বিষয় সম্পর্কে যদি আপনি ভালভাবে শিখতে পারেন তাহলে আপনি নিজেই একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন । এখন কথা হলো এগুলো কি এবং কিভাবে আপনি শিখতে পারেন । 

এইচটিএমএলঃ এইচটিএমএল হচ্ছে এক ধরনের ল্যাংগুয়েজ বা ভাষা । html-এর পূর্ণরূপ হল “হাইপারটেক্সট মার্কআপ ল্যাংগুয়েজ”। যার মানে হচ্ছে এইচটিএমএল এক ধরনের মার্কআপ ল্যাংগুয়েজ কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ নয় । এইচটিএমএল এর কাজ হচ্ছে ওয়েবসাইট দেখতে কি রকম হবে হেডার কোথায় থাকবে ,সাইডবার কোথায় থাকবে, লেখাগুলো কি রঙের হবে বা কত বড় সাইজ হবে কোথায় কোথায় ইমেজ যুক্ত করতে হবে ,টেবিল আরো ইত্যাদি কাজ করা হয় এইচটিএমএল ল্যাঙ্গুয়েজ এর মাধ্যমে ।  ওয়েবসাইটের স্ট্রাকচার তৈরি করা হয় এই এইচটিএমএল এর মাধ্যমে । তাই এইচটিএমএল ভালোভাবে জানতে হবে । এইচটিএমএল এ কিছু কোড থাকে সেই কোড মাধ্যমে কিছু নির্দিষ্ট ট্যাগ ব্যবহার করে এইচটিএমএল লিখতে হয় ।

সিএসএসঃ  CSS এর পূর্ণরূপ হল Cascading Style Sheet । এ থেকেই বুঝতে পারা যায় যে এর একটি স্টাইল আছে । এইচটিএমএল ওয়েব সাইট এর গঠন বা স্ট্রাকচার তৈরি করে । কিন্তু কোথায় কোন রং হবে বা কোন টেক্সট দেখতে কেমন হবে এগুলো এইচটিএমএল এর দ্বারা করা সম্ভব না । এগুলো করতে সিএসএস ব্যবহার করা । সিএসএস ব্যবহার করে ওয়েব সাইটের ডিজাইন করা হয় । এটা ওয়েবসাইট সাজিয়ে একদম নতুন বউয়ের মত করে দেয় । 

জাভাস্ক্রিপ্টঃ JavaScript এর সাথে অনেক কি Java কেক গুলিয়ে ফেলে । Java হল একটি  programming language আর JavaScript হল একটি scripting language । এটি সরাসরি ব্রাউজারে রান করে । জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে একটি ডায়নামিক রূপ দিতে পারে যাতে করে আপনার ওয়েবসাইট আরও উন্নত মানের হবে । 

এই প্রধান তিনটি বিষয় যদি আপনি শিখতে পারেন তাহলে আপনি ওয়েব ডিজাইন মোটামুটিভাবে শেখা হয়ে যাবে । এই তিনটি বিষয় বাদে আরো কয়েকটি জিনিস আপনাকে শিখতে হবে তবে এই তিনটি আগে আপনি প্রথমে ভালোভাবে শিখুন । 

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট 

একটি অ্যাপ বা ওয়েবসাইটের মূল প্রধান দুইটি অংশ থাকে । এগুলো হলো 

ব্যবহারকারীরা অ্যাপ বা ওয়েবসাইট এর ভিতরে প্রবেশ করে তখন তারা মূলত ডিজাইন কি দেখতে পায় । কিন্তু তারা ডেভেলপমেন্ট দেখতে পায় না । এই ওয়েবসাইট ডিজাইন করে থাকে ওয়েব ডিজাইনাররা । আর ডেভেলপমেন্ট পড়ে থাকে ওয়েব ডেভেলপাররা । চলুন আমরা বিস্তারিত ভাবে বোঝার চেষ্টা করি,

” আপনি যে আমাদের এই ওয়েবসাইটে আছেন এখানে আপনি যা যা দেখতে পাচ্ছেন এগুলো কন্টাক্ট দেখতে পারছেন থিম গুলো গুলো দেখতে পাচ্ছেন এছাড়াও কালার মেনু বার যা যা দেখতে পাচ্ছেন সব গুলো ওয়েব ডিজাইনাররা করেছে । 

আর এখন যদি আপনি আমাদের আর্টিকেলটি ভালো লাগে তাহলে যদি শেয়ার বাটন এ ক্লিক করেন তাহলে আপনি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় অটোমেটিক পোস্ট হয়ে যাবে । যদি কমেন্ট করবেন তাহলে কমেন্ট গুগলের ডেটাবেজে থেকে যাবে এগুলো মূলত ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর কাজ । “

ওয়েব ডেভেলপার রা মার্কআপ ল্যাংগুয়েজ গুলোর সাথে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ যুক্ত করে । 

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর ধরন

কাজের ধরন অনুযায়ী ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর তিন ভাগে ভাগ করা যায় । 

  • ফ্রন্ট ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার
  • ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার
  • ফুলস্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপার

ফ্রন্ট ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার

এই ধরনের ডেভলপাররা মূলত ওয়েবসাইট এর বাইরের অংশকে ডিজাইন করে থাকে । কোন ক্লায়েন্ট যখন তাদের এই ধরনের ওয়েবসাইট তৈরি করতে বলে তখন তারা ক্লায়েন্টের কাছ থেকে জেনে নেয় ওয়েবসাইটটির দেখতে কিরকম হবে তারপর তারা এইচটিএমএল এবং সিএসএস কোড ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরি করে দেয় । তারা মূলত ওয়েবসাইটে ফাংশনাল করে দেয় । যার মানে হচ্ছে এই সকল ডেভলপাররা ফটোশপ বা পিএইচপি বিভিন্ন রকম এডিটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করে তারা একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন করে ওয়েবসাইট কি রকম দেখতে হবে কোথায় কোনটি থাকে লাইক বাটন কমেন্ট বাটন কোথায় কোনটা থাকবে সবগুলো এরা ডিজাইন করে থাকে । এরা শুধু ওয়েবসাইটের ডিজাইন করে এ ছাড়া অন্য কোন কিছু কাজ এরা করতে পারেনা । 

ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার

একজন ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার  ফ্রন্ট ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার সকল নলেজ রাখতে হয় । এর মানে হলো কিভাবে ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে হবে সে সম্পর্কে অবশ্যই তার ধারণা থাকতে হবে ।ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার এর কাছ থেকে তারা ওয়েবসাইটটি কিরকম দেখতে হবে এবং কোথায় কি থাকবে এরকম ওয়েবসাইট তারা নিজেরা নিয়ে এগুলোকে ফাংশনাল রূপ দেয়  ওয়েবসাইট কিভাবে ডিজাইন করতে হবে সেটা না জানলে 

ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার হওয়া যায় না ।

একজন ওয়েব ব্যাক ইন্ড ডেভেলপার ওয়েবসাইট ফাংশনাল ওয়েবসাইট এ রূপান্তরিত করে । ব্যাক এন্ড ডেভেলপমেন্ট এর কাজ করতে হলে আপনাকে অবশ্যই এইচটিএমএল ,সিএসএস, জাভাস্ক্রিপ্ট, পিএইচপি, পাইথন অবশ্যই শিখতে হবে । এগুলো ব্যবহার করে তারা ওয়েবসাইট থেকে ডায়নামিক রূপ দেয় । এদের কোট করে সেই কোড গুলো কোথায় কোন কোড বসাতে হবে এ সম্পর্কে খুব ভালো না লেজ থাকা দরকার না হলে তারা এই কাজ কোন ভাবি করতে পারবে না ।  এগুলো সম্পর্কে না জানলে ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার । 

ফুলস্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপার

একজন ফুলস্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপার এর ফ্রন্ট ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার এবং ব্যাক ইন্ড ওয়েব ডেভেলপার এর দুটো কাজই করতে পারে । এদের ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে হয় এবং স্ট্যাটিক করতে হয় । এরা ওয়েবসাইটের ডিজাইন নিজেরাই করে এবং ওয়েবসাইটটিকে স্ট্যাটিক এবং ডাইনামিক রূপ নিজেরাই দেয় । এরা মূলত সব কিছুই করতে পারে ওয়েবসাইট ডিজাইন থেকে শুরু করে ওয়েবসাইটটিকে ডায়নামিক গ্রুপ দেওয়া পর্যন্ত যত যত কাজ করা লাগে সকল কাজ এরকম ডেভলপাররা করতে পারে ।  

আপনি কোন ডেভেলপার হবে

আপনাকে যদি বলা হয় ওপরের তিনটে কাজের মধ্যে আপনি কোন কাজটা করতে ইচ্ছুক বা কোন কাজটি বেছে নিবেন ।অবশ্যই আপনি full-stack ওয়েব ডেভলপার হতে চাইবেন । এর কারণ এদের সম্মান সবচেয়ে বেশি এরা সকল কিছুই তৈরি করতে পারে ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য কারো কাছে কোন রকম সাহায্য চাইতে হয় না । এই সকল ডেভলপারদের অনেক ক্লায়েন্ট থাকে । এরা সবচেয়ে বেশি কাজ পেয়ে থাকে এর কারণ ক্লায়েন্টরা তার কাছ থেকে একটি ওয়েবসাইট সম্পূর্ণরূপে তৈরি করে নিয়ে যেতে পারেন ভিন্ন ভিন্ন ভাবে ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য কারো কাছে যেতে হয় না এর জন্যই ক্লায়েন্টরা এই ধরনের ডেভলপার এর হাতে সকল কিছু করতে চায় । তাহলে আপনি অবশ্যই ফুল স্ট্যাক ডেভেলপার হতে চাইবেন । 

ওয়েব ডেভেলপার হতে হলে কি কি শিখতে হবে 

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা ওয়েব ডেভলপার হতে সহজ এবং কম সময়ে শিখতে চান । তারা এই ধরনের পোস্ট বা কোর্স করতে চায় । কিন্তু ওয়েব ডেভলপার হচ্ছে একটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ । আর আপনি তো জানেন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ সহজে বা তাড়াতাড়ি শেখা যায় না । তবে আপনি যদি ধৈর্য এবং সময় নিয়ে আস্তে আস্তে শিখতে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি একজন দক্ষ ওয়েব ডেভেলপার হতে পারবেন । ওয়েব ডেভেলপার হতে হলে আপনাকে যে যে বিষয় লাগবে হবে সেগুলো হলো , 

  • অবশ্যই আপনার একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকতে হবে
  • প্রচুর ধৈর্য এবং ইচ্ছাশক্তি থাকতে হবে পাশাপাশি অনেক সময় দিতে হবে
  • কাজ শেখার জন্য আপনার প্রবল আগ্রহ এবং মনোবল থাকতে হবে
  • এডোবি ফটোশপ সম্পর্কে বেসিক লেভেলের ধারণা থাকতে হবে
  • ইংরেজি পুরোপুরি না জানলেও বেশি কিছু বিষয় জানতে হবে । অবশ্যই আপনি যখন ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর পোস্ট করবেন তখন আপনি ইংরেজি এমনিতেই শিখে ফেলতে পারবেন ।
  • ওয়েব ডিজাইন শিখতে হবে
  • কিছু গুরুত্বপূর্ণ সফটওয়্যার লাগবে যেমন, notepad++, Mozilla Firefox ইত্যাদি যা আপনি নিজেই পরবর্তীতে বুঝতে পারবেন । 

ওয়েব ডেভেলপার হতে হলে কি কি  শিখতে হবে

ওয়েব ডেভলপার হওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ সম্পর্কে জানতে হবে । সাথে আরও যা যা লাগবে সেগুলো হলো , 

  • HTML
  • XML 
  • CSS
  • Responsive design
  • JavaScript
  • Jquery
  • Bootstrap
  • PHP
  • WordPress
  • Git
  • UI or UX
  • Photoshop
  • SEO

এগুলো শিখতে হবে দেখে ভাবছেন এত অনেক কঠিন ব্যাপার । আসলে আপনি যা ভাবছেন তা একদমই নয় । আপনি যদি প্রবল আগ্রহ এবং মনোবল ও ধৈর্য সময় নিয়ে আস্তে আস্তে শিখতে থাকেন তাহলে একটির পর আরেকটি সম্পর্কে আপনার বেসিক ধারণা এমনিতেই হয়ে যাবে । 

তাহলে এবার আসুন এগুলো সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত ভাবে পরিচিত হই । 

HTML ,CSS, JavaScript এগুলো সম্পর্কে আমরা ইতোমধ্যে জেনেছি বাকিগুলো হলো ,

XML

XML এর পূর্ণরূপ হল eXtensive Markup Language । এটি এইচটিএমএল এর মত একটি মার্কআপ ল্যাংগুয়েজ । তবে এইচটিএমএল এর চাইতে এর কিছু ভিন্নতা আছে । এগুলো ব্যবহার করে এক্স এম এল ডকুমেন্ট তৈরি করা হয় । html-এর যেমন নির্দিষ্ট কিছু ট্যাগ থাকে XML এ নির্দিষ্ট কোন ট্যাগ থাকে না। এখানে নিজের ইচ্ছামত ট্যাংক বানানো যায় ।

এটির মাধ্যমে ওয়েবসাইট এর ভিতরে কি ডাটা আছে সেটা দেখা যায় । কিন্তু এইচটিএমএল এ ভেতরের কোন ডাটা দেখা যায় না । এখানে এদের দু’জনার পার্থক্য । 

Responsive design

এটি CSS এর একটি অংশ । এর প্রধান কাজ হল তৈরিকৃত ওয়েবসাইটের সকল ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ এবং স্মার্টফোনে ব্যবহারের উপযোগী করে তোলা । যে কোন ডিভাইসে আপনার সফটওয়্যার সাপোর্ট করা, লেখাগুলো স্পষ্ট দেখা , লেখাগুলো জায়গা এবং বৈশিষ্ট্য ঠিক রাখা এটার কাজ । তবে আপনি যদি সি এস এর সম্পর্কে পুরোপুরি শিখে যান তাহলে এটি এমনিতেই আপনি শিখে যাবেন ।

JQuery

এটির মাধ্যমে ওয়েবসাইটের  ইন্টার একটিভ করা হয় । উদাহরণ হিসেবে বলা যায় আপনি যদি ফেসবুক ব্যবহার করেন তখন যদি আপনি কোন পোস্ট করেন সেই পোস্টে যদি আপনার কোন বন্ধুরা লাইক করে তাহলে আপনার কাছে একটি নোটিফিকেশন আসে । স্লাইড শো, e-mail ফরম, লগইন ফরম তৈরি করা এবং সেটাকে ফাংশনাল করা হয় এর মাধ্যমে । 

Bootstrap

Bootstrap হচ্ছে একটি জনপ্রিয় ফ্রেমওয়ার্ক । এর সাহায্যে ওয়েব সাইটকে আরো জনপ্রিয় করে তোলা যায় । অধিকাংশ ক্লাইন্ট রা তাদের ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য Bootstrap  ব্যবহার করার নির্দেশ দিয়ে থাকে । আপনি যদি এইচটিএমএল, সিএসএস ,জাভাস্ক্রিপ্ট শিখে যান তাহলে বুস্টার শেখা আপনার জন্য খুবই সহজ হয়ে যাবে ।

PHP 

পিএইচপি (PHP : hypertext preprocessor ) একটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ বা প্রোগ্রামিং ভাষা ।  পিএইচপি মূলত সার্ভার সাইড স্ক্রিপ্টিং এর জন্য ব্যবহার করা হয় ।

পিএইচপির মূল কাজ হলো Hyper Text Process করা । হাইপারটেক্সট বলতে বোঝানো হয়েছে HTML, XML ,CSS  । পিএইচপি সার্ভারে ডিসিশন দেয় কাকে কোন পেজে পাঠাবে । লগ ইন বা  সফট্ওয়ারে প্রবেশের সময় ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড দিতে হয় সেটা এটার মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয় । সেগুলো বিশ্লেষণ করে ডেটাবেজ এর সাথে কানেক্ট হয় ডাটা স্টার ,ওয়েবসাইট ডায়নামিক ইত্যাদি কাজে পিএইচপি ব্যবহার করা হয়। 

WordPress

ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে সবচেয়ে জনপ্রিয় cms সফটওয়্যার । বিশ্বের যত গুলো নামকরা এবং জনপ্রিয় ওয়েবসাইট আছে তার প্রায় সবগুলো ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা তৈরি । উপরের বিষয়গুলো শিখতে পারলে ওয়ার্ডপ্রেস শিখতে আপনার বেশিদিন সময় লাগবে না । 

Git 

Git হচ্ছে একটি জনপ্রিয় সফটওয়্যার ভার্সন কন্ট্রোল সিস্টেম । যে কোন ওয়েব সাইটে জনপ্রিয় করতে বা জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে প্রতিনিয়ত আপডেট করতে হয় । আর ওয়েবসাইট আপডেট ভার্সন তৈরি করতে এটার ব্যবহার করা হয় । 

UI অথবা XI

একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন করাই হচ্ছে মূলত UI এর প্রধান কাজ । যদি আপনি জনপ্রিয় ডিজাইনার হতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই UI জানতে হবে । ফুল স্ট্রাকচারের ডেভেলপার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই UI জানতে হবে ।

Photoshop

একজন ভাল মানের এবং দক্ষ ওয়েব ডেভলপার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই ফটোশপ জানতে হবে । ফটোশপ ওয়েব ডেভেলপারদের নানাভাবে সাহায্য করে থাকে । নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য ওয়েব ডেভলপার ফটোশপের মাধ্যমে খুব সহজে এবং তাড়াতাড়ি সময়ের মধ্যে একটি ওয়েবসাইট দেখতে কিরকম হবে সেটা ডিজাইন করে ফেলে । তারপর সেগুলো দেখে দেখে কোড লিখে ওয়েবসাইট তৈরি করে ফেলে । এছাড়াও মাঝে মধ্যে ওয়েব ডেভেলপারদের লোগো ডিজাইন করতে হয় । যেটা তারা ফটোশপের মাধ্যমে করে থাকে । এরই জন্য আপনি যদি বড় এবং দক্ষ মানের ওয়েব ডেভলপার হতে চান তাহলে অবশ্যই ফটোশপ আপনি কি শিখতে হবে । 

SEO 

SEO এর পূর্ণরূপ হল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন । এটা সম্পূর্ণ শেখার প্রয়োজন না হলেও বেসিক লেভেল এর ধারণা থাকাটা প্রয়োজন । যেমন ওয়েবসাইট তৈরির ক্ষেত্রে এমন অনেক স্টক আছে যেগুলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর উপযোগী করে তুলতে হয় । আর যদি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করা না হয়ে থাকে তাহলে আপনি যার জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করবেন সে কতটা লাভবান হবে না । এর জন্য আপনাকে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে বেসিক লেভেল এর ধারণা থাকতে হবে ।   

কোথায় শিখবেন

এতক্ষণ আমরা জেনেছি যে ওয়েব ডেভেলপার বা ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে কি কি শিখতে হবে । এখন অনেক এর  মাঝেই একটি প্রশ্ন চলে এসেছে সেটি হল সবই তো বুঝলাম কিন্তু এগুলো কোথা থেকে শিখব । 

ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট শেখার জন্য অনেক কোচিং সেন্টার আছে । সেই কোচিং সেন্টারগুলোতে গিয়ে আপনি প্রত্যক্ষভাবে বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর কোর্স শিখতে । 

যে কোন কোচিং সেন্টারে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর কোর্স করতে হলে আপনাকে একটা নির্দিষ্ট ফি দিতে হবে । সেটা আমার জানা মতে 20 থেকে 30 হাজার টাকার কম নয়। 

তাহলে আপনি কি করবেন । কোচিং সেন্টারে আপনি টাকা দিয়ে কোচিং না করে ও ইন্টারনেটে অনেক সফল ফ্রিল্যান্সারদের চ্যানেল আছে যেখানে তারা হাতে-কলমে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর এ টু জেড কোর্স করিয়ে থাকে । সেখান থেকে আপনি যদি প্রত্যেকদিন নির্দিষ্ট একটা সময় করে শিখতে থাকেন এবং নিজে নিজে কোড লেখার প্র্যাকটিস করেন তাহলে আপনার আর কোন কোচিং সেন্টারের যাবার প্রয়োজন হবে না । আপনি নিজে ঘরে বসে থেকে একজন দক্ষ ওয়েব ডেভেলপার হতে পারে এবং নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে গঠন করতে পারবেন । 

এছাড়াও বিভিন্ন ওয়েবসাইট আছে যেখানে তারা ফ্রিতে অনেক কোর্স করিয়ে থাকে । সেখানে গিয়ে আপনি শিখতে পারেন । যদি আপনার শেখার ইচ্ছা থাকে তাহলে আপনাকে কোন কিছুই দমিয়ে রাখতে পারবে না। শুধু প্রয়োজন একটু ইচ্ছাশক্তির এবং প্রবল মনোবল । এরকম কিছু প্ল্যাটফর্মের নাম নিচে উল্লেখ করা হল । 

W3school: আপনি আপনার ফোনের ব্রাউজার এ গিয়ে উপরে লেখাটির সার্চ করলে একটি ওয়েব সাইট পাবেন যেখানে ওয়েব ডিজাইন এবং ওয়েব ডেভলপমেন্টের সকল কোর্স আছে । এখানে উদাহরণসহ আপনাকে সবকিছু বুঝিয়ে দেওয়া হবে । 

YouTube: আপনি ইউটিউবে গিয়ে যদি সার্চ করেন তাহলে অনেক অনেক টিউটোরিয়াল পেয়ে যাবেন । যেখান থেকে আপনি নিজের প্রয়োজনমতো টিউটারেল দেখে শিখে নিতে পারবেন । 

Programming hero: এটি একটি জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন । এই অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেছেন ঝংকার মাহবুব । প্লে স্টোরে গিয়ে আপনি এই এপ্লিকেশনটি ইনস্টল করে সেখান থেকে ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট ,প্রোগ্রামিং, সি ল্যাঙ্গুয়েজ, এইচটিএমএল, সিএসএস আরো ইত্যাদি বিষয় খুবই সহজ ভাষায় বোঝানো হয়েছে এখান থেকে আপনি করতে পারবেন এবং এখানে কোড লিখে সেটা ব্রাউজারে রান করে অনুশীলন করতে পারবেন । 

আর যদি আপনি টাকার বিনিময়ে কোর্স করে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে চান তাহলে বাংলাদেশের নামিদামি অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যেখান থেকে আপনারা খুব সহজেই ওয়েব ডেভেলপমেন্ট বা ওয়েব ডিজাইন কোর্স কমপ্লিট করতে পারবেন । 

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ার 

আপনি যদি ত্বকের ডেভেলপার হতে পারেন তাহলে ওয়েব ডেভলপার হিসেবে আপনি আপনার ক্যারিয়ার গঠন করতে পারবেন । আপনি ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন এই ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখে । বাংলাদেশে এমন অনেকে আছে যারা তাদের ইচ্ছা শক্তির জোরে কোন কোচিং সেন্টারে না গিয়ে শুধুমাত্র ঘরে বসে ওয়েব ডেভেলপার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন এবং বর্তমানে তারা সফল ফ্রিল্যান্সার হিসেবে তাদের ক্যারিয়ার গঠন করছে । 

কোথায় এবং কিভাবে আয় করবেন 

আপনি যদি সফল ওয়েব ডেভলপার হতে পারেন তাহলে বিভিন্ন আইসিটি কোম্পানি আপনাকে কাজের জন্য অফার করবে ।সেগুলো না করলেও আপনি নিজেই ঘরে বসে থাকে বিভিন্ন প্লাটফর্ম থেকে মাসে টাকা ইনকাম করতে পারবেন ।এই কাজে সবচেয়ে ভালো ব্যাপার হলো আপনি বাড়িতে বসে থেকে আপনার নিজের মতো যখন আপনার কাজ করতে ইচ্ছা হবে আপনি কাজ করবেন যখন আপনার কাছে করতে ইচ্ছা হবে না আপনি কাজ করবেন না এখানে আপনাকে কেউ কোনো রকম অর্ডার দেবে না । একজন ওয়েব ডেভেলপার এর প্রচুর ডিমান্ড রয়েছে অনলাইন মার্কেটপ্লেসে । আপনি যেভাবে আয় করতে পারবেন সেগুলো হলো। 

কোম্পানিতে ওয়েব ডেভেলপার হয়ে

আপনি একজন সফল ওয়েব ডেভলপার হয় বিভিন্ন আই টি কোম্পানিতে জব নিতে পারেন । এরকম আই টি কোম্পানিতে ওয়েব ডেভলপার এর জব এর কোন অভাব নেই । প্রত্যেকদিন মাত্র 8 ঘণ্টা কাজ করে মাসে সে 70 – -100 হাজার টাকা বেতন । এছাড়া আপনি নিজের বাড়িতে বসে যা করবেন তা তো বাদই ।

ফ্রিল্যান্সিং করে 

একজন ওয়েব ডেভলপার রেড অনলাইন মার্কেটে যে কি পরিমান বিমান রয়েছে তাই একজন ফ্রিল্যান্সার ছাড়া অন্য কেউ বলতে পারবে না । একজন ওয়েব ডেভলপার এর কাজের কোন অভাব নেই অনলাইন মার্কেটপ্লেসে । সে কাজ করে মাসে সে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারে শুধুমাত্র ঘরে বসে থেকেই । এই রকমের কিছু জনপ্রিয় প্লাটফর্ম এর নাম হলো,

  •  upwork
  • freelancer.com

আরো বিভিন্ন ধরনের প্লাটফর্ম খুঁজে পাওয়া যায় অনলাইন জগতে যেখান থেকে আপনি খুব সহজেই কাজকে কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

নিজের ডিজাইন বিক্রি করে আয় 

অনলাইনে যে কি পরিমান থিম বিক্রি হয় সেটা আপনার বোঝার জন্য একটি ওয়েবসাইট ব্রাউজিং করে দেখতে পারেন   themeforest   । এই ওয়েবসাইট এর ভিতরে গিয়ে আপনি দেখতে পারেন যে অনলাইন মার্কেটপ্লেসে কিরকম থিম বা ওয়েব ডিজাইন বিক্রি হয় । আপনি নিজে নিজে বিভিন্ন থিম এবং ওয়েব ডিজাইন করে এসব মার্কেটপ্লেসে বিক্রি করে প্রচুর পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন । 

আশা করি আপনারা এই পোস্ট থেকে কিভাবে ওয়েব ডিজাইন বা  ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে শুরু করবেন তার একটা বেসিক লেভেল এর ধারণা পেয়েছেন । ওয়েব ডিজাইনার বা ওয়েব ডেভেলপার হবার জন্য যা যা শিখতে হবে সেগুলো নিয়ে পরবর্তী পোস্টে আবার বিস্তারিত আলোচনা করব । পোস্টটি ভাল লাগলে অবশ্যই শেয়ার করে পাশেই থাকবেন ।

তথ্যসূত্রঃ

১। ডবলিউথ্রি প্রোগ্রামারস

অন্যান্য পোস্টসমূহঃ

error: Content is protected !!