Menu Close

কোষ বিভাজনঃ

জিব দেহের গঠনগত একক হলো কোষ। প্রতিটি জিব ছোট ছোট কোষ দিয়ে গঠিত। এক একটা জিব হাজার হাজার কোষ দিয়ে গঠিত হয় আবার অনেক জিব একটি মাএ কোষ দিয়ে গঠিত হয়।

জীবের বিভিন্ন অংশের ক্রোমবিকাশ জীবের জনন, জীবের বৃদ্ধি, জীবের ক্ষয়প্রাপ্ত অংশের মেরামত এর জন্য প্রতিনিয়ত কোষ বিভাজন (cell division) হয়ে থাকে।একটি হাজার কোষি জিবের শুরু হয় একটি মাএ কোষ দিয়ে এবং নিয়মিত বিভাজনের মাধ্যমে অনেক কোষ তৈরি হয় আর এই বিভাজিত কোষ থেকে  লার্ভা বা ভ্রুনের সৃষ্টি হয়। এই লার্ভা বা ভ্রুন জীবে পরিণত হয়। জীবের জীবনে কোষ বিভাজন একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। একটি কোষ থেকে যে পদ্ধতিতে নতুন আরেকটি কোন এর সৃষ্টি হয় তাকে কোষ বিভাজন বলে। অর্থাৎ একটি কোষ যে পদ্ধতিতে তার নিজের প্রতিলিপি তৈরি করে তাকে কোষ বিভাজন বলে।

কোষ তিন প্রকারে বিভাজন হয়। যথাঃ

  • অ্যামাইটোসিস
  • মাইটোসিস
  • মিয়ােসিস

অ্যামাইটোসিসঃ

অ্যামাইটোসিস প্রক্সিয়ায় সাধারণত একটি কোষ থেকে আপাত্য নতুন দুটি কোষের সৃষ্টি হয়। এই বিভাজন মূলত এককোষী জীবদেহে হয়ে থাকে।এককোষী জিবদেহ বলতে ব্যকটেরিয়া, ছাএক, ইষ্ট ইত্যদি জিবকে বোঝানো হয় মানে যে জিবগুলো একটি মাএ কোষ দিয়ে গঠিত। এইসব এককোষী জীব মূলত অ্যামাইটোসিস বিভাজন প্রক্সিয়ায় বিভাজিত হয়ে নতুন জিবের সৃষ্টি করে বা বংশবৃদ্ধি করে। অ্যামাইটোসিস বিভাজন প্রক্সিয়ায় কোষ নিউক্লিয়াস ও সাইটোপ্লাজম মাঝ বরাবর বিভক্ত হয়ে দুটি কোষে পরিণত হয়। অ্যামাইটোসিসকে প্রত্যক্ষ কোষ বিভাজন বলা হয় কারণ নিক্লিয়াস ও সাইটোপ্লাজম সরাসরি বিভক্ত হয়ে দুটি কোষ সৃষ্টি করে। অ্যামাইটোসি বিভাজন প্রক্সিয়ায় প্রথমে নিউক্লিয়াসটি ডাম্বেলের আকার ধারণ করে পরে মাঝবরাবর বিভক্ত হয়ে দুটি আপাত্য নিউক্লিয়াসে পরিনত হয় এবং সাথে সাথে সাইটোপ্লাজম ও মাঝবরাবর বিভক্ত হয়ে দুটি আপাত্য কোষে পরিণত হয়।

মাইটোসিসঃ

মাইটোসিস কোষ বিভাজন প্রক্রিয়া ক্রোমোজোম ও নিউক্লিয়াস একবার বিভাজিত হয়।এই বিভাজন প্রক্সিয়ায় কোষ নিউক্লিয়াস ও ক্রোমোজোম একবার বিভাজিত হয়ে মাতৃকোষের অনুরূপ একটি কোষ তৈরি করে। তাই মাইটোসিস কোষ বিভাজন প্রক্সিয়াটাকে অনেকে সমীকরণীক বিভাজন বলে থাকে। মাইটোসিস বিভাজন দুটি প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হয়। ক্যারিওকাইনেসিস মানে নিউক্লিয়াসের বিভাজন ও সাইটোকাইনেসিস সাইটোপ্লাজমের বিভাজন।

ক্যারিওকাইনেসিস ৫ টি ধাপে হয় । যথাঃ

  • প্রোফেজ
  • প্রো-মেটাফেজ
  • মেটাফেজ
  • অ্যানাফেজ
  • টেলোফেজ

মিয়োসিসঃ

মিয়োসিস বিভাজনে মুলত নিউক্লিয়াসটি পরপর দুবার বিভাজন হয় কিন্তু ক্সোমোজোম মাএ একবার বিভাজিত হয়। তাই মাতৃকোষের ক্সোমোজোম থেকে আপাত্য কোষে ক্রোমোজোম অর্ধেক হয়ে থাকে। সাধারণত মিয়োসিস বিভাজন প্রক্সিয়ায় চারটি আপাত্য কোষ সৃষ্টি হয় এবং প্রতিটাতেই ক্সোমোজোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোমোজোম সংখ্যার অর্ধেকে হয়ে থাকে।

অন্যান্য পোস্টসমূহঃ

error: Content is protected !!